পৌর নির্বাচনকে কেন্দ্র করে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের ১৮ নেতা-কর্মীকে বহিষ্কার

Posted on by

ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌরসভার নির্বাচন নিয়ে আওয়ামী লীগে অস্থিরতা দেখা দিয়েছে। দলটির ‘বিদ্রোহী’ প্রার্থী মাহমুদুল হক ভূইয়ার পক্ষে প্রচার-প্রচারণায় অনেক নেতা–কর্মী অংশ নেওয়ায় এ সমস্যা দেখা দিয়েছে। এ কারণে বহিষ্কারের তালিকাও দীর্ঘ হচ্ছে। গতকাল মঙ্গলবার রাতে জেলা যুবলীগের ছয় নেতাকে বহিষ্কার করা হয়েছে। ‘বিদ্রোহী’ প্রার্থীর পক্ষে কাজ করায় এ পর্যন্ত আওয়ামী লীগ ও এর সহযোগী সংগঠনের মোট ১৮ জনকে বহিষ্কার করা হয়েছে।

গতকাল মঙ্গলবার রাতে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা আওয়ামী যুবলীগের দপ্তর সম্পাদক রিটন রায় স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে ওই ছয়জনকে বহিষ্কারের বিষয়টি জানানো হয়। সেখানে যুবলীগের প্রাথমিক সদস্যপদ থেকে তাঁদের স্থায়ীভাবে বহিষ্কারের জন্য কেন্দ্রীয় কমিটিতে সুপারিশ পাঠানো হয়েছে।

নতুন করে বহিষ্কৃত নেতারা হলেন জেলা যুবলীগের সহপ্রচার সম্পাদক শেখ শওকত হোসেন, পৌর যুবলীগের সদস্য দেবাশীষ ভৌমিক, মো. হাবিবুল্লাহ, মো. সোহেল মিয়া, জাহিদ ওসমান ও সাহাবী রেজা।

এ নিয়ে গত চার দিনে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় জেলা আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য ও পৌরসভা নির্বাচনে আওয়ামী লীগের ‘বিদ্রোহী’ প্রার্থী মাহমুদুল হক ভূইয়াসহ তাঁর সমর্থক জেলা আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের ১৮ নেতা-কর্মীকে দল থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে।
খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগ ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র পদে দ্বিতীয়বারের মতো নায়ার কবিরকে মনোনয়ন দেয়। নায়ার কবির জেলা আওয়ামীলীগের সহসভাপতি।

এর আগে বহিষ্কৃত নেতারা হলেন মেয়র পদে বিদ্রোহী প্রার্থী মাহমুদুল হক ভূইয়া, জেলা আওয়ামী লীগের মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক সম্পাদক আলী আকবর, উপদেষ্টামণ্ডলীর সদস্য আজিজুর রহমান, জেলা কৃষক লীগের সাধারণ সম্পাদক ফরিদ উদ্দিন, পৌর আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা আবু সিদ্দিক, শাহজাহান মিয়া, জেলা কৃষকলীগের সহসভাপতি জাকির হোসেন, প্রচার সম্পাদক সারোয়ার আলম, সদস্য আবুল কালাম, ৪ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মাসুদ রানা, ৪ নম্বর ওয়ার্ডের যুবলীগের সদস্য আল-আমিন দুলাল, আনিসুর রহমান।

বিদ্রোহী মেয়র প্রার্থী মাহমুদুল হক ভূইয়া আজ সংবাদ সম্মেলনে করে বলেন, ‘আমাদের বহিষ্কার করার কোনো এখতিয়ার জেলা আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাদের নেই। শুনেছি তাঁরা আমাদের বহিষ্কার করার জন্য নিজ নিজ সংগঠনের কেন্দ্রীয় কমিটির কাছে সুপারিশ পাঠিয়েছে। কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগ আমাদের বহিষ্কার করার অধিকার রাখে।’

এ বিষয়ে জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আল মামুন সরকার বলেন, আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থীর পক্ষে নির্বাচনী প্রচার-প্রচারণায় অংশ নেয়ার অভিযোগে এবং দলীয় সিদ্ধান্ত অমান্য ও শৃঙ্খলা ভঙ্গের কারণে তাঁদের বহিষ্কার করা হয়। তাঁদের স্থায়ীভাবে বহিষ্কার করার জন্য কেন্দ্রীয় কমিটিতে সুপারিশ পাঠানো হয়েছে।
প্রথম আলো

More News from গ্রাম বাংলা

More News

Developed by: TechLoge

x