টিয়ার মুখে নোংরা ভাষা, সংশোধনাগারে পাঠাল চিড়িয়াখানা

Posted on by

মানুষের মুখে নোংরা ভাষা, ভদ্র ভাষা এসব হতেই পারে। তাই বলে পাখির মুখেও কি? অবশ্য সব পাখির মুখে নয়, যেসব পাখি মানুষের ভাষা রপ্ত করতে পারে, তারা মানুষের মতো ভদ্র ভাষার পাশাপাশি নোংরা ভাষায়ও অভ্যস্ত হতে পারে। ইংল্যান্ডের এক চিড়িয়াখানার টিয়া পাখিগুলো তাই প্রমাণ করে দিল।

লিঙ্কনশায়ার ওয়াইল্ডলাইফ পার্কের টিয়া পাখিগুলোর মুখে সারাক্ষণ নোংরা ভাষা লেগেই থাকত। চিড়িয়াখানা কর্তৃপক্ষের অভিযোগ, পাখিগুলো এমনই যে, ছোট-বড় সবার সামনেই অশ্লীল কথা উচ্চারণ করত ওরা। এতে বিব্রত কর্তৃপক্ষ। তারা শেষ পর্যন্ত পাখিগুলোকে চিড়িয়াখানা থেকে সরিয়ে দিতে বাধ্য হয়েছেন। সরিয়ে দেয়ার উদ্দেশ্য, পাখিগুলো যেন তাদের ভাষারীতি পাল্টাতে পারে।

চিড়িয়াখানা থেকে পাঁচটি টিয়াকে তাই ভাষা শিক্ষার জন্য অন্যত্র পাঠানো হয়েছে। খারাপ কথা ভুলে ভাল কথা না শেখা পর্যন্ত তাদের কোয়ারেন্টাইনে থাকতে হবে। পাঁচ টিয়া আলাদা আলাদা থেকে অশ্লীল কথা ভুলে যেন ভদ্র ও সভ্য হয়।
লিঙ্কনশায়ার ওয়াইল্ডলাইফ পার্কের পক্ষে জানানো হয়েছে, পাঁচটি আফ্রিকান টিয়াকে আলাদা আলাদা পাঁচ জনের কাছে পাঠানো হয়েছে। সেখান থেকে নিজেদের সংশোধন করে ফেরার পরে ফের তাদের দর্শকদের মুখোমুখি হতে দেওয়া হবে। এই পাঁচ টিয়ার নাম এরিক, জেড, এলসি, টাইসন আর বিল্লি।

চিড়িয়াখানার কর্মকর্তা স্টিভ নিকোলাস বলেছেন, শিশুদের সামনে ওদের কথাবার্তা নিয়ে আমরা চিন্তিত হয়ে পড়েছিলাম। এখন অপেক্ষা, কবে এই পাঁচ আফ্রিকান টিয়ার সুশিক্ষা শেষ হবে। তারপরেই ফেরা হবে চিড়িয়াখানায়। সূত্র : স্টারট্রিবিউন

Developed by: TechLoge

x