দেশে প্রবাসিরা নির্যাতিত: নরওয়ের সিটি কাউন্সিলরের ওপর সাটুরিয়ায় দুর্বৃত্তদের হামলা : রক্তাক্ত জখম (ভিডিও সহ)

Posted on by

ঢাকা অফিস:
বাংলাদেশে প্রবাসিরা বিমান বন্দর থেকে শুরু করে নিজ এলাকায় কখনো মানসিক আবার কখনো শারীরিক নির্যাতনের শিকার। তারা দেশে পা দিয়েই নিরাপত্তাহীনতায় ভুগেন বলে জানান। বিদেশে থাকার কারণে দেশে তাদের জায়গা, বাড়ী, ফ্ল্যাট দখল করে নেয় সন্ত্রাসিরা। নরওয়ের বার্গেন সিটি কর্পোরেশনের কাউন্সিলর হাবিবুল হক (৬০) নিজ এলাকায় এবং নিজ বাড়ীতে হামলার শিকার হয়েছেন। এ ঘটনায় এলাকার মানুষের মধ্যে চরম উদ্বেগ দেখা দিয়েছে। তবে ভয়ে কেউ মুখ খুলতে চায় না। ঢাকার কাছে মানিকগঞ্জ জেলার সাটুরিয়া বাজার এলাকার বহু সম্পত্তির মালিক ছিলেন হাজী মো: আবদুর রহমান। তারই ছোট ছেলে হাবিবুল হক নরওয়ে প্রবাসি দীর্ঘ ৪০ বছরের বেশি সময় ধরে। তিনি নরওয়ের বার্গেন সিটি কর্পোরেশনের দুইবারের নির্বাচিত কাউন্সিলর। দীর্ঘদিন পর সম্প্রতি তিনি বাংলাদেশে তার নিজ জন্মভূমি সাটুরিয়ায় আসেন।

বিদেশে থাকায় তাদের জায়গা সম্পত্তি দখল করে রাখে এলাকার একদল দুর্বৃত্ত। তিনি তার সম্পত্তি উদ্ধারে পদক্ষেপ নিতে গেলে তার বাড়ীতে ঢুকে দিনদুপুরে ধারালো অস্ত্র দিয়ে হামলা চালায় সন্ত্রাসিরা। এসময় তিনি গুরুতরভাবে রক্তাক্ত জখম হন। খবর পেয়ে সাটুরিয়া থানা পুলিশ তাকে উদ্ধার করে দ্রুত স্থানীয় হাসপাতালে ভর্তি করে। বর্তমানে তিনি স্ত্রী ও সন্তানকে নিয়ে নিরাপত্তাহীনতায় রয়েছেন বলে জানিয়েছেন। বর্বর হামলার বর্ণনা দিয়ে তিনি সাটুরিয়া থানায় অভিযোগ দায়ের করার পরও ওসি মতিউর রহমান কোন আসামিকে গ্রেফতার করেননি। অথচ আজকের সাটুরিয়া থানা কম্পাউন্ড তাদের দেয়া পৌনে ৪ একর জায়গার ওপর নির্মিত। পুলিশের গড়িমসিতে স্থানীয় প্রভাবশালীরা অপরাধিদের আড়াল করে রাখছে। উল্টো প্রবাসি হাবিবুল হকের কাছে তারা চাঁদা দাবি করছে। হামলার আগের রাতে হাজী আজিজুলের সাথে তাদের বৈঠক হয় বলে পুলিশ জানতে পেরেছে। তারই ইন্ধনে সন্ত্রাসিরা এই হামলা চালিয়ে বলে পুলিশ ধারণা করছে। আসামি গ্রেফতার না হওয়ায় হাবিবুল হক নিজেকে নিরাপত্তাহীন মনে করছেন। সিসিটিভি ফুটেজে হামলাকারীদের ছবি দেখেও পুলিশ কোন পদক্ষেপ নেয়নি বলে জানান ভিকটিম হাবিবুল হক। অসহায় নরওয়ে প্রবাসি হাবিবুল হক সাটুরিয়া থানায় যে এজাহার দায়ের করেছেন তা হুবহু তুলে ধরা হলো:

tv190nline.com coming soon


বিনীত নিবেদন এই যে, আমি মোঃ হাবিবুল হক (৫৬), পিতা- মৃত হাজী মোঃ আব্দুর রহমান, সাং- সাটুরিয়া বাজার, থানা- সাটুরিয়া, জেলা- মানিকগঞ্জ। সাটুরিয়া থানার হাজির হয়ে বিবাদী ১। মোঃ হামিদুল্লাহ মিয়া (৩৫), ২। মোঃ হুমায়ুন কবির (৪০), ৩। মোঃ হাসি উল্লাহ (৪৫), সর্ব পিতা- মোঃ আব্দুল মান্নান, ৪। মোঃ সজীব (২৭), পিতা- মৃত সাহা আলী, ৫। মোঃ মান্নান মিয়া (৬০), পিতা- মৃত আব্দুল হক, সর্ব সাং- সাটুরিয়া বাজার, সর্ব থানা- সাটুরিয়া, জেলা- মানিকগঞ্জ-দের বিরুদ্ধে এজাহার দায়ের করিতেছি যে, সাটুরিয়া বাজারে আমার দ্বিতীয় তলা বাড়ী সংলগ্ন বাড়ীর উত্তর পাশে গোডাউনে ১০/১২ বস্তা এলোমোনিয়াম/ পিতলের মালামাল রাখিয়া দেই। উক্ত গোডাউন ভাঙ্গিয়া পুনঃনির্মান করিবার উদ্দেশ্যে আমি লেবার দ্বারা কাজ করাইতে থাকি। উপরোক্ত বিবাদীরা পূর্ব শত্রুতার জের হিসাবে ইং ১৫/০৭/২০২০ খ্রিঃ তারিখ সকাল অনুমান ৮.৪৫ ঘটিকার সময় বিবাদীরা হাতে লোহার রড, শাবুল, রামদা, ধারালো অস্ত্র ইত্যাদি দেশীয় অস্ত্রে সজ্জিত হইয়া বে-আইনী দলবদ্ধে অতর্কীত ভাবে আমার গোডাউনে অনাধিকার প্রবেশ করিয়া ৫নং বিবাদী হুকুম দেয় যে, শালাদের খুন করিয়া ফেল এবং মালামাল লুট কর। সাথে সাথে ১নং বিবাদীর হাতে থাকা লোহার রড, ২নং বিবাদীর হাতে থাকা শাবল ৩ ও ৪নং বিবাদীর হাতে থাকা ধারালো অস্ত্র দ্বারা আমার গোডাউনে কাজ করিতে থাকা লেবার ১। মোঃ আলম মিয়া (২৮), পিতা- মোঃ আব্দুস সালাম, সাং- পশ্চিম কুষ্টিয়া, ২। মোঃ আনন্দ মিয়া (৩০), সাং- কুড়িকাহুনিয়া ঘিওর, ৩। মোঃ রেজা মিয়া (২৮), পিতা- মোঃ ছামাদ মিয়া, সাং- নওগাঁও, সর্ব থানা- সাটুরিয়া, জেলা- মানিকগঞ্জ-দের শরীরের বিভিন্ন স্থানে এলোপাথারীভাবে বাইরাইয়া ও মারপিট করিয়া নিলা, ফুলা ও রক্তাক্ত জখম করে। আমার লেবারদের ডাকচিৎকারে আমি গোডাউনে উপস্থিত হইয়া বিবাদীদের ঠেকাইতে গেলে ১, ২, ৩ ও ৪ নং বিবাদীদের হাতে থাকা লোহার রড, শাবল ও ধারালো অস্ত্র দ্বারা আমার শরীরের বিভিন্ন স্থানে এলোপাথারী ভাবে বাইরাইয়া গুরুতর নিলাফুলা ও রক্ত জমানো জখম করে। ১ নং বিবাদীর হাতে থাকা লোহার রড দ্বারা আমাকে খুন করিবার উদ্দেশ্যে আমার মাথার উপরে সজোরে বারি মারিলে তাৎক্ষনিক আমি জীবন রক্ষার্থে আমার হাত দ্বারা ঠেকাইতে গেলে উক্ত বারি আমার বাম হাতে মধ্য আঙ্গুলের উপরে লাগিয়া গুরুত্বর জখম হয়। একপর্যায়ে সকল বিবাদীরা আমার গোডাউনে থাকা ১০/১২ বস্তা এলোমনিয়াম/পিতলের মালামাল জোর পূর্বক বাহির করিয়া নিয়া যায়। যাহার মূল্য অনুমান ২,৫০,০০০/- টাকা। আমাদের ডাক চিৎকারে সাটুরিয়া বাজার ও আশপাশ হইতে ২/৩ জন লোক ঘটনাস্থলে আসিয়া উক্ত ঘটন দেখে, শোনে এবং বিবাদীদের কবল হইতে আমাদের উদ্ধার করে। বিবাদীরা উপস্থিত লোকজনদের সম্মুকে প্রকাশ্যে আমাদের খুন, জখমসহ প্রাণ নাশের হুমকি প্রদর্শন করিয়া ঘটনাস্থল হইতে দ্রুত চলিয়া যায়। পরবর্তীতে স্থানীয় লোকজনের সহায়তায় ও তাদের খবরে সাটুরিয়া থানার স্টাফ আমাকে থানার নিজস্ব গাড়ী যোগে চিকিৎসার জন্য সাটুরিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়া ভর্তি করে।
প্রবাসি হাবিবুল হক দাবী জানান, পরিবারের নিরাপত্তার স্বার্থে অচিরেই দুর্বৃত্তদের গ্রেফতার করে দ্রুত আইনের আওতায় আনা হোক।

https://www.facebook.com/Tv19online-108980804207797/?xts%5B0%5D=68.ARD32EW1k5Hb385onX7vSWY4LhwOFLTA2Ti1uvCscJmpE3m2iCsFUCSAifVx0q8x5vQg9GnEshIEf9G3BSRHrDSIIItb7xB0bf0g2u8En8_VAI0CAjjwiyXmf-PMTbAgw-s2Qm_rR-lBk-8ZNaUbndFgvRxLsVjerwQ56gfln1W53rP6ZdWU-9fexpGoUA9pk_aQwQxrX4KfwWh2TDhDJF9jq8iBCTWrjGqe0SSh_7n4jCX-baVqh2G4jCL11la2yFv_4W__rdxx4YYXgxmkfzLE45fUpxmar66YAND_zXBM_W66Ez_NRBSb9rhlBXuzTgZHNDWYOHND75NpO8Z6JZ4&xts%5B1%5D=68.ARBM2k-2KsY7MtQbEtWp-8doqbcFgsURRtje207hVzyDQOK_DdnIdbAAG5bl2VEEmtOdmHTBA7TZDRpkZHpBsTLnyljHZKjU437QxHmv5ah76kteYn9SoDbcOPb5VIvFx0dmj77ncxgiV3-JTX56n8jk9Be1eefTY1KfKN8Xkf2IV0vhYZuE0HK9kpsFQ1CYf45FTtbiQ2HrLRggTOLuhd4ZBlLngeOK462NvPMKVce5BWqW6fdTfQSxVr33FMRQif42RbxVxcSverRe9d-aNLwC2p_BZoBCKQ2TUKlpIjjWuOtg8r689Gxvt2zJcS3PWA6_h8s7B9PR9XgABjbbaps&tn=K-R&eid=ARD3diBhzG9VE4NU-BLvs2hvYlqgERZQLHMSIiSCXLAHJsMsY3OdA-wMBjgkQV0sIg8TIrynhBaT_BQZ&fref=mentions

Leave a Reply

More News from কমিউনিটি

More News

Developed by: TechLoge

x