এবারের ঈদে যে কারণে দর্শক হারাবে নাটক-সিনেমা

Posted on by

উত্তেজনা ছড়িয়ে ৩০ মে থেকে শুরু হচ্ছে ক্রিকেটের বিশ্বকাপের দ্বাদশ আয়োজন। এবারে ইংল্যান্ড এবং ওয়েলসে ১০টি দল অংশগ্রহণ করবে। সেখানে অন্যতম শক্তিশালী দল হিসেবে যোগ দেবে তামিম-সাকিবরা। এরইমধ্যে বিশ্বকাপ জ্বরে কাঁপতে শুরু করেছে লাল সবুজের বাংলাদেশ।

আর তারই প্রভাব দেখা যাচ্ছে ঈদকে ঘিরে টিভি চ্যানেলগুলোর আয়োজনে। বলা চলে মন্দ প্রভাব। আশংকা করা হচ্ছে প্রভাব পড়বে ঈদের সিনেমাতেও।
প্রতি বছরের ঈদ উযদাপনকে কেন্দ্র করে রমরমা হয়ে উঠে বিভিন্ন শুটিং হাউজ, শুটিং স্পটগুলো। তুমুল ব্যস্ততায় সময় পার করেন নানা বয়সী তারকারা। পরিচালকদের মাথার ঘাম পায়ে ঝরাতে হয় তারকাদের শিডিউল পাওয়ার জন্য। টিভি চ্যানেলগুলোকে হিমশিম খেতে অনুষ্ঠানের শিডিউল সাজাতে গিয়ে।

সাধারণত সপ্তাহব্যাপী আয়োজন সাজানো হয় দেশীয় টিভি চ্যানেলগুলোতে। কেউ কেউ দশদিনেরও আয়োজন নিয়ে হাজির হয়। এই আয়োজনের আওতায় সব চ্যানেল মিলিয়ে প্রচার হয় প্রায় চার থেকে পাঁচশ নাটক-টেলিফিল্ম। প্রচার হয় অনেক রকমের সংগীতানুষ্ঠান, ম্যাগাজিন অনুষ্ঠান, তারকাদের নিয়ে আড্ডা ও নানা রকম শো।

পর্যাপ্ত অনুষ্ঠানের যোগান পেতে টিভি চ্যানেলগুলো নানা এজেন্সিগুলোতেও ধর্ণা দেয়। আবার এতসব নাটক-অনুষ্ঠান হাতে নিয়েও অনেক সময় দেখা যায়, সময়ের অভাবে কিছু বাদ দিতে বাধ্য হন চ্যানেল কর্তৃপক্ষ।

কিন্তু এবারের চিত্রটা ভিন্ন। টেলিভিশন চ্যানেলগুলোতে নেই উল্লেখ করার মতো তেমন ব্যস্ততা। সরেজমিনে দেখা গেল খ্যাতনামা প্রোডাকশন হাউজগুলো অন্যান্যবারের তুলনায় অতেটা সরব নয়। এজেন্সিগুলোতেও নেই তেমন উত্তেজনা। রাত-দিন এক করে কাজ করা অভিনেতা-নির্মাতাদের সংখ্যাও এবার কম।

জাহিদ হাসান, মোশাররফ করিম, নুসরাত ইমরোজ তিশা, আখম হাসান, চঞ্চল চৌধুরী, ঊর্মিলা শ্রাবন্তী কর, অপূর্ব, সজল, মেহজাবিন, আফরান নিশো, তানজিন তিশাদেরকেই সবচেয়ে বেশি নাটক-অনুষ্ঠানে দেখা যাবে। তবে সেটাও গেল কয়েক বছরের তুলনায় কম। কেন? কারণ হিসেবে উঠে এলো ক্রিকেট বিশ্বকাপ।

একাধিক তারকা অভিনয়শিল্পীই দাবি করেছেন, ঈদ উৎসব আর বিশ্বকাপ এবার একসঙ্গে চলবে। যার ফলে চ্যানেল মালিকরা নাটকের প্রতি খুব একটা আগ্রহ দেখাচ্ছেন না। তারা বিশ্বকাপ নিয়ে দুশ্চিন্তায় রয়েছেন।

ঈদের জন্য বাড়তি লগ্নি করে এক্সক্লুসিভ নাটক-টেলিছবি কিনতে হয়। কিন্তু বিশ্বকাপের প্রভাবে সেগুলোর জন্য পর্যাপ্ত বিজ্ঞাপন মিলছে না। বড় মাপের বিজ্ঞাপনদাতা প্রতিষ্ঠানগুলো বিশ্বকাপ প্রচার করা চ্যানেলগুলোর প্রতিই মনযোগ দেখাচ্ছেন।

পাশাপাশি যারা টিভি নাটকসহ বিভিন্ন অনুষ্ঠানে পৃষ্ঠপোষকতা করতে আসছেন তারা এবার বাজেট কমিয়ে নিয়েছেন। ঈদের জন্য স্বাভাবিকভাবে একটু বাড়তি খরচ করে ভালো কিছু তৈরির চেষ্টা চলে। কিন্তু সে অনুযায়ী অর্থ ফেরতের নিশ্চয়তা পাচ্ছে না টিভি চ্যানেলগুলো।

বিজ্ঞাপনদাতারা ক্রিকেট বিশ্বকাপের সময়টাকে ঝুঁকিপূর্ণ দাবি করে বিজ্ঞাপনের মূল্য কমিয়ে আনছেন। এতে করে নেতিবাচক প্রভাব পড়েছে টিভি অনুষ্ঠানে। শোনা যাচ্ছে, অনেক নির্মাতা লগ্নির টাকা উঠাতে না পারায় নাটক বিক্রি থেকে বিরত রয়েছেন। তারা আসছে কোরবানি ঈদের সেগুলো জমিয়ে রেখেছেন।

অভিনয়শিল্পী ও নির্মাতারা ঠিকই অনেক কাজ করার সুযোগ পেয়েছেন। অনেক প্রযোজক এই ঈদে তাদের নাটক-টেলিছবি বা অনুষ্ঠান বিক্রি না করলেও সেটা তারা জমিয়ে রাখতে পেরেছেন। বিশ্বকাপের প্রভাব থামলেই সেগুলো ভালো দামে বাজারে ছাড়বেন। কেউ কেউ আবার ইউটিউবকে বেছে নিয়েছেন নাটক-টেলিছবি চালানোর প্লাটফর্ম হিসেবে।

বিশ্বকাপে ছোটপর্দার ঈদ অনুষ্ঠানের প্রভাব নিয়ে ছোট পর্দার নির্মাতাদের সংগঠন ডিরেক্টরস গিল্ডের সভাপতি সালাউদ্দিন লাভলু বলেন, ‘এটা তো অবশ্যই দুশ্চিন্তার। কারণ ক্রিকেট এই দেশের মানুষের কাছে খুবই প্রিয়। আমি নিজেও ক্রিকেট ভক্ত। ছেলে-বুড়ো সবাই বাংলাদেশের খেলা হলে তাদের জয়ের দিকে তাকিয়ে থাকে।

আর প্রিয় দেশ যখন বিশ্বকাপে খেলবে আবেগটাই থাকবে অন্যরকম। টিভিতে কী অনুষ্ঠান হচ্ছে সেটা বাদ দিয়ে ক্রিকেট খেলা দেখবে সবাই। আর যেহেতু এটা বিশ্বকাপ তাই বাংলাদেশের খেলা ছাড়াও অন্য খেলাগুলো দেখতে চাইবেন অনেকে। তাই কিছুটা তো প্রভাব পড়বেই। এ চ্যালেঞ্জ নিয়েই কাজ করতে হবে।’

ছোটপর্দার পাশাপাশি বিশ্বকাপের প্রভাব দেখা যেতে পারে বড় পর্দাতেও, এমনটাই আশংকা করছেন চলচ্চিত্রের মানুষজন। আসছে ঈদে মালেক আফসারী পরিচালিত ‘পাসওয়ার্ড’, সাকিব সনেটের ‘নোলক’ ও অনন্য মামুনের ‘আবার বসন্ত’ নামের ছবিগুলো মুক্তির জন্য অপেক্ষা করছে। এসব ছবিতে শাকিব খান, বুবলী, ববি, ইমন, স্পর্শিয়া, তারিক আনাম খান, মিশা সওদাগর, ডনসহ অনেক তারকা শিল্পী অভিনয় করেছেন।

তবে সিনেমা হল মালিকরা আতঙ্কে ভুগছেন ক্রিকেট বিশ্বকাপ নিয়ে। সারা বছর ঈদকে ব্যবসার ‘সুবর্ণ সময়’ বলে মনে করেন সিনেমার সঙ্গে যুক্ত অনেকেই। তাই সিনেমা হল মালিকসহ অনেক প্রযোজক, পরিচালক আশংকা করছেন ক্রিকেট বিশ্বকাপ এবার ঈদের ছবিগুলোতে ব্যবসায়িকভাবে নেতিবাচক প্রভাব ফেলতে পারে। তাই সিনেমার বুকিংয়ে সতর্ক ও মিতব্যয়ী থাকছেন তারা।

মধুমিতা সিনেমা হলের কর্ণধার ইফতেখার উদ্দিন নওশাদ বলেন, ‘বাংলাদেশের যে কোনো ক্রিকেট ম্যাচই প্রভাব ফেলে। বিশ্বকাপ হলে প্রভাবটা আরও আতংকের। আমি ঈদে শাকিব খানের ‘পাসওয়ার্ড’ ছবিটি চালাবো। দেখা যাক কী হয়। আশা করছি, দর্শক সিনেমা হলে ঈদের ছবি দেখতে আসবে।’
Jagonews

Leave a Reply

Developed by: TechLoge

x