প্রেস ক্লাব সেক্রেটারী ‍মুহাম্মদ জুবায়েরের সংবর্ধনা

Posted on by

লন্ডন : কানাইঘাট ওয়েলফেয়ার ট্রাস্ট-ইউকে আয়োজনে অনুষ্ঠিত হলো ঈদ পূনর্মিলনী। এতে সম্প্রতি এলাকার অস্বচ্ছল ও মেধাবি স্টুডেন্টদের মধ্যে বৃত্তি বিতরন ও অন্যান্য সেবা কার্যক্রমের উপর একটি ডকুমেন্টারি তুলে ধরা হয়। একই সময় কানাইঘাটের সুসন্তান লন্ডন বাংলা প্রেস ক্লাবের জেনারেল সেক্রেটারী মুহাম্মদ জুবায়ের বৃটিশ বাংলাদেশী পাওয়ার হান্ড্রেড তথা শত প্রভাবশালীর তালিকাভূক্ত হওয়ায় তার সম্মানে অনুষ্ঠিত হয় সংবর্ধনা।

অনুষ্ঠানে বক্তারা সংবর্ধিত অতিথির সফলতাকে বৃটেনে বসবসকারী কানাইঘাটবাসীর জন্য অনুপ্রেরনামূলক বলে উল্লেখ করেন। ট্রাস্ট চেয়ার প্রফেসর আবদুল মালিকের সভাপতিত্বে এবং সেক্রেটারী শামিম আহমদের পরিচালনায় এতে বক্তব্য রাখেন চীফ এডভাইজার ও এনএইচএস ম্যানেজার ভিপি খসরুজ্জামান, এডভাইজার যথাক্রমে ব্যবসায়ি আনিসুল হক, ব্যবসায়ি কায়সার চৌধুরী, ম্যাথমেটিশিয়ান সোয়েবুর চৌধুরী ও ব্যাংকার নুরুল আলম ভাইস প্রেসিডেন্ট আবুল মনসুর চৌধুরী ও আবুল করিম বাহার, দুই জয়েন্ট সেক্রেটারী যথাক্রমে ফারুক চৌধুরী ও রুহুল আমিন, ট্রেজারার বদরুল আলম, মুহাম্মদ জাকারিয়া, হারিস আহমদ। ঈদ ফিচার ও পয়েম উপস্থাপন করে আবির মালিক ও মনসুর মালিক।
অনুষ্ঠানে প্রফেসর আবদুল মালিক বলেন, আমরা ইউকেতে বসবাসকারীরা এক সাথে এলাকার জন্য কাজ করতে চাই এবং এদেশে বসবাসকারী সফল মানুষদের উপস্থাপন করে নতুন প্রজন্মকে উতসাহিত করতে চাই।
ভিপি খসরুজ্জামান বলেন, আমাদের কাছে কানাইঘাটই প্রধান। এলাকার কল্যানে কাজ করাই আমাদের উদ্দেশ্য। তিনি সংবর্ধিত অতিথি মুহাম্মদ জুবায়েরের বেশ কিছু টিভি রিপোর্ট এবং এর কারনে সমাজে প্রভাব নিয়ে বিস্তারিত তুলে ধরেন।
লন্ডন বাংলা প্রেস ক্লাব সেক্রেটারী মুহাম্মদ জুবায়ের বলেন, স্ৎ ও কল্যানকর ভূমিকা রাখার জন্যই সাংবাদিকতা। নানা বাস্তবতা ও চ্যালেঞ্জ এর মধ্যে দায়িত্ববোধ নিয়ে কাজ করা সহজ বিষয় নয়। আর নীতিবান সাংবাদিকতায় সব পক্ষকে খুশি করার সুযোগ নেই-এ কারনে সম্মান-স্বীকৃতির আশা নিয়ে এই পেশায় সক্রিয় থাকা যায়না। তারপরও নিজ এলাকার সম্মান মানে বড় পাওনা, যা আমি দোয়া হিসেবেই নিচ্ছি।

More News from আন্তর্জাতিক

More News

Developed by: TechLoge

x