সিটি নির্বাচন রাজশাহী ও বরিশালে বিএনপির প্রার্থী চুড়ান্ত, সিলেটে সিদ্ধান্তের অপেক্ষায়

Posted on by

নিউজ লাইফ ডেস্কঃ রাজশাহী ও বরিশাল সিটি করপোরেশন নির্বাচনে বিএনপির মেয়র প্রার্থীর নাম চূড়ান্ত করা হয়েছে। মেয়রপদে দলীয় প্রার্থী হলেন – রাজশাহীতে বর্তমান মেয়র ও মহানগর বিএনপির সভাপতি মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল এবং বরিশালে মহানগর বিএনপির সভাপতি মুজিবর রহমান সরোয়ার।

বৃহস্পতিবার (২১ জুন) সন্ধ্যায় বিএনপির চেয়ারপারসনের গুলশান কার্যালয়ে তিন সিটিতে মেয়রপদে মনোনয়ন-প্রত্যাশীদের সাক্ষাৎকার নেওয়া শেষে এই মনোনয়ন দেয় দলটির মনোনয়ন বোর্ড।সংশ্লিষ্ট সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

এর আগে ঐদিন বিকাল সাড়ে ৫টায় মনোনয়ন-প্রত্যাশীদের সাক্ষাৎকার শুরু হয়ে রাত ৮টার দিকে শেষ হয়।বিএনপির মনোনয়ন বোর্ডে উপস্থিত ছিলেন—দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন,ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদ, ব্যারিস্টার জমিরউদ্দিন সরকার,মাহবুবুর রহমান,ড. মঈন খান, মির্জা আব্বাস,গয়েশ্বর চন্দ্র রায় ও আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী।মনোনয়ন-প্রত্যাশীদের সাক্ষাৎকার নেওয়া শেষে বৈঠক করে দুই সিটির প্রার্থী চূড়ান্ত করে মনোনয়ন বোর্ড।

তবে সিলেটের বিষয়ে চুড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেয়া হয়নি।বর্তমান মেয়র আরিফুল হকের বিরুদ্ধে অন্যপ্রার্থীরা ও স্থানীয় বিএনপি একাট্টা হওয়ায় সিদ্ধান্ত গ্রহণে বিপাকে পড়েছে মনোয়ন বোর্ড।ফলে প্রার্থী চূড়ান্তকরণে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের সিদ্ধান্তের জন্যে প্রেরণ করা হয়েছে বলে জানা গেছে।সহসাই সিলেটে বিএনপি প্রার্থীর নাম চুড়ান্ত করা হবে বলে  জানিয়েছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব এডভোকেট রুহুল কবির রিজভী আহমেদ।

সাক্ষাৎকার শেষে সিলেটের বর্তমান মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী বলেন,আমি মনোনয়নপত্রম সংগহ করেছি।আজ সাক্ষাৎকার দিয়েছি।দলের পক্ষে থেকে আমাকে বলা হয়েছে,সেখানে অন্য কাউকে প্রার্থী করা হলে আমার অবস্থান কী হবে? আমি বলেছি,দল যাকে মনোনয়ন দেবে,আমি তার পক্ষে কাজ করবো।তিনি আরো বলেন,আমাকেও নির্বাচনের প্রস্তুতি নিতে বলেছেন।আমি নির্বাচনের প্রস্তুতি নিচ্ছি।’

মেয়র পদে মনোনয়ন প্রত্যাশী বদরুজ্জামান সেলিম বলেন,প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে বিএনপির রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত রয়েছি।আমার প্রিয় শহর সিলেটে ছাত্রদলের নেতৃত্ব থেকে শুরু করে আজ বিএনপির নেতৃত্ব দিচ্ছি।দলের প্রয়োজনে নানা সময়ে ত্যাগ শিকার করেছি। আমি আশাকরি আমার প্রিয় দল বিএনপি এসব ত্যাগ-তিতিক্ষার যথার্থ মূল্যায়ন করবে।

সিলেট সিটি করপোরেশনের মেয়র পদে মনোনয়ন-প্রত্যাশী মহানগর বিএনপির সহ-সভাপতি ও প্যানেল মেয়র রেজাউল হাসান কয়েস লোদী বলেন,আমাদের সাক্ষাৎকার নেওয়া হয়েছে।তবে মনোনয়ন বোর্ড কোনো সিদ্ধন্ত দেয়নি।তিনি আরো বলেন,আমরা সিলেটের সব মনোনয়ন-প্রত্যাশী বর্তমান মেয়র আরিফুল হক চৌধুরীকে আগামী নির্বাচনে মনোনয়ন না দিতে দলের নীতি নির্ধারকদের অনুরোধ করেছি।কারণ তিনি এখন আর বিএনপির নেতা নেই।দলের কোনো কর্মসূচিতে তাকে পাওয়া যায়নি।তাই তার বাইরে দল যাকে মনোনয়ন দেবে,আমরা সবাই তার পক্ষ হয়ে নির্বাচনে কাজ করবো বলে এসেছি।

রাজশাহীর মেয়র ও মহানগর বিএনপির সভাপতি মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল বলেন,আমাকে নির্বাচনের প্রস্তুতি নিতে বলা হয়েছে।আমার সিটি থেকে আর কেউ মনোনয়নও সংগ্রহ করেননি। একমাত্র আমিই মনোনয়ন সংগ্রহ করেছি।

বরিশালের সিটি নির্বাচনে মেয়র পদে মনোনয়ন প্রত্যাশী কেন্দ্রীয় বিএনপির বরিশাল বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক বিলকিস জাহান শিরিন বলেন,দলের মনোনয়ন বোর্ড আমাদের সাক্ষাৎকার নিয়েছেন।তবে দল কাকে মনোনয়ন দেবে,সেই বিষয়ে কোনো সিদ্ধান্ত এখনও আমাদের জানানো হয়নি।এর আগে বুধবার (২০ জুন) তারা ১০ হাজার টাকা জমা দিয়ে ১৪ জন মনোনয়পত্র সংগ্রহ করেছেন। এরপর বৃহস্পতিবার (২১ জুন) ২৫ হাজার টাকা জামানতসহ মনোনয়নপত্র জমা দেন তারা।

রাজশাহী সিটি নির্বাচনে মেয়র পদে প্রার্থী হতে শুধু বর্তমান মেয়র মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন।সিলেটে বর্তমান মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী,সিলেট মহানগর সভাপতি নাসিম হোসাইন,সাধারণ সম্পাদক বদরুজ্জামান সেলিম,সিনিয়র সহ-সভাপতি আব্দুল কাইয়ুম জালালী পংকী,সহ-সভাপতি ও প্যানেল মেয়র রেজাউল হাসান কয়েস লোদী ও মহানগর নেতা ছালাহউদ্দিন রিমন মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন।

বরিশালের বর্তমান মেয়র আহসান হাবিব কামাল,দক্ষিণ জেলা বিএনপির সভাপতি এবাদুল হক চান, মহানগর বিএনপির ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক জিয়া উদ্দিন সিকদার,দক্ষিণ জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আবুল কালাম শাহীন,কেন্দ্রীয় বিএনপির বরিশাল বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক বিলকিস জাহান শিরিন,কেন্দ্রীয় বিএনপির নির্বাহী কমিটির সদস্য আবু নাসের মুহাম্মদ রহমাতুল্লাহ, ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক আফরোজা খানম নাসরিন মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন।প্রসঙ্গত,কমিশন ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী আগামী ৩০ জুলাই রাজশাহী,বরিশাল ও সিলেট সিটি করপোরেশন নির্বাচনে ভোট গ্রহণ হবে। মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার শেষ তারিখ ২৮ জুন। প্রার্থিতা প্রত্যাহার করা যাবে ৯ জুলাই পর্যন্ত।

More News from বাংলাদেশ

More News

Developed by: TechLoge

x