‘বিচার বিভাগের বিবেক দেখার অপেক্ষায় মানুষ’

Posted on by

ইউএনএন বিডি নিউজঃ   বিএনপি নেতা আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী বলেছেন, দুর্নীতির মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে রায় দেখতে নয়, বরং বিচার বিভাগের বিবেক বিতাড়িত হয়েছে কি না, মানুষ সেটি দেখতে চায়।

শনিবার দুপুরে রাজধানীর সেগুনবাগিচায় ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি মিলনায়তনে এক আলোচনা সভায় তিনি বলেন, ‘৮ তারিখের জন্য মানুষ অপেক্ষা করছে, বিচারের রায়ের জন্য নয়। অপেক্ষা করছে, বাংলাদেশের বিচার বিভাগ থেকে বিবেক বিতাড়িত হয়ে গেছে কি না, বিবেক আছে কি নেই, সেটার জন্য।’

‘যদি প্রমাণিত হয়, বিচার বিভাগের বিবেক প্রতারিত হয়েছে, তাহলে বাংলাদেশের মানুষের আর কোনো কিছুর ওপর আস্থা রাখার কোনো সুযোগ থাকবে না। এর পর যা হওয়ার এ দেশের মানুষ সিদ্ধান্ত নেবে’, বলেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির এই সদস্য।

রায়ের আগেই তা নিয়ে ক্ষমতাসীনদের দেওয়া বক্তব্যের সমালোচনা করে আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী বলেন, ‘ওই দিন কী রায় হবে, সেটা বিচার বিভাগের যিনি বিচারক আছেন, তিনি বলার আগে দেশের সরকারপ্রধান থেকে শুরু করে তার মন্ত্রিসভার লোকজন এবং নির্বাহী বিভাগে যারা বিভিন্ন সংস্থায় জড়িত, তাদের মন্তব্যের মাধ্যমে তারা পরিষ্কার করে দিয়েছে। সুতরাং বিচারকের আর কিছু বলা বাকি নাই। বিচারকের এখন আর কোনো কাজ নাই। তার কাজটা রাষ্ট্রপ্রধান, তার মন্ত্রিপরিষদ, নির্বাহী বিভাগের বিভিন্ন সংস্থার লোকজন করে দিয়েছে।’

‘জীবনের নিরাপত্তা ও আইনের শাসন’ শীর্ষক এই গোলটেবিল আলোচনা সভার আয়োচন করে ‘দেশ বাঁচাও মানুষ বাঁচাও আন্দোলন’।

সরকার জুলুম নির্যাতন করে ক্ষমতায় থাকতে চাইছে, অভিযোগ করে বিএনপির অন্যতম এই নীতিনির্ধারক বলেন, ‘যারা আজকে জোর করে ক্ষমতা দখল করে আছে, তারা যে বুঝতে পারছে না, এটা কিন্তু চিন্তার করার কোনো কারণ নেই। তারা সবকিছু বুঝে-শুনেই কাজ করছে। কারণ, তারা আজকে যেভাবে ক্ষমতায় আছে, এগুলো করেই তাদেরকে থাকতে হবে।’

ক্ষমতাসীনরা রাষ্ট্রের প্রত্যেকটি অঙ্গকে সম্পূর্ণভাবে কুক্ষিগত করে বলেও অভিযোগ করেন তিনি।

‘রাষ্ট্রের শেষ আশ্রয়স্থল বিচার বিভাগকেও সম্পূর্ণভাবে কুক্ষিগত করার চেষ্টা করছে। যার ফলে ৮ ফেব্রুয়ারি আজকে দেশের মানুষের সামনে বড় দিন হয়ে দাঁড়িয়েছে। সব চেয়ে দুঃখের বিষয় হচ্ছে, ৮ ফেব্রয়ারি কী রায় হবে, বাংলাদেশের মানুষের কাছে এটা বোঝানোর কিছু নেই। কোনো রায় বিচারের আগে একটি দেশের মানুষের কাছে পরিষ্কার হয়ে যাওয়া এটা কিন্ত কোনোদিন আমরা দেখি নাই,’ বলেন আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী।

বিএনপির এই নেতা বলেন, ‘যেকোনো ছোট-বড় রায় হোক না কেন মানুষ কিন্তু তার অপেক্ষায় থাকে। যারা সুবিচার চায়, সুবিচারের অপেক্ষায় থাকে এবং বিচার বিভাগ তার বিবেকের পরিচয় দেয় একটি আইনগত রায়ের পক্ষে। কিন্তু রায় কী হবে, দেশের মানুষ আজকে শাসকদলের আচরণে পরিষ্কার বুঝতে পেরেছে।’

খালেদা জিয়ার রায় নিয়ে সরকারের কর্মকাণ্ডে ভীতি প্রতিফলিত হচ্ছে, মন্তব্য করে তিনি বলেন, ‘তারা এখন বিভিন্ন জেলায় জেলায়, ওয়ার্ডে ওয়ার্ডে সভা করছে এবং স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী হুঙ্কার দিচ্ছেন। কারণ, তাদের মধ্যে একটা ভয় ঢুকে গেছে।’

‘একটা রায় হবে, তাতে সরকারের লোকজনের নতুন করে সভা-সমাবেশ করার প্রয়োজন কী? স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর হুঙ্কার দেওয়ার প্রয়োজন কী? তাদের এ আচরণে জাতির বিবেক জাগ্রত হয়ে গেছে, আর তাদের বিবেক ধ্বংস হয়ে গেছে,’ বলেন তিনি।

আলোচনা সভায় প্রধান আলোচকের বক্তব্যে বিএনপির ভাইস-চেয়ারম্যান শামসুজ্জামান দুদু বলেন, ‘৮ ফেব্রুয়ারি মুক্তিযুদ্ধ সত্য না মিথ্যা, এটা প্রমাণ হবে। বেগম জিয়ার একটাই শুধু দোষ- তিনি কেন গণমানুষের পক্ষে আছেন, গণতন্ত্রের পক্ষে আছেন, স্বাধীনতা-স্বার্বভৌমত্বের পক্ষে কাজ করছেন। এটি শুধু তার দোষ।’

আয়োজক সংগঠনের সভাপতি কে এম রকিবুল ইসলাম রিপনের সভাপতিত্বে এবং সহ-সভাপতি নাজমুল হোসেন রনির সঞ্চালনায় আরো বক্তব্য দেন গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী, বিএনপির যুগ্ম-মহাসচিব অ্যাডভোকেট সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, গণশিক্ষাবিষয়ক সম্পাদক অধ্যক্ষ সেলিম ভূইয়া, জিনাফের সভাপতি মিয়া মো. আনোয়ার, ছাত্রদলের দপ্তর সম্পাদক আব্দুস সাত্তার পাটোয়ারি প্রমুখ।

More News from বাংলাদেশ

More News

Developed by: TechLoge

x