বাংলাদেশ-ভারত মৈত্রী উদ্যান উদ্বোধন চট্টগ্রাম বন্দর ব্যবহারে অনুমতি চাইলেন ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রী

Posted on by

নিউজ ডেস্কঃ ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চলের রাজ্যগুলোর জন্য চট্টগ্রাম বন্দর ব্যবহারের অনুমতি দিতে বাংলাদেশ সরকারকে আহ্বান জানিয়েছেন ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রী মানিক সরকার। শনিবার বিজয় দিবসের দিন রাজ্যের দক্ষিণ ত্রিপুরার বিলোনীয়ার রাজনগর ব্লকের চোত্তাখোলায় ‘ভারত-বাংলাদেশ মৈত্রী উদ্যান’উদ্বোধন অনুষ্ঠানে তিনি এ আহ্বান জানান। উদ্যানটি ১৯৭১ সালে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিবিজড়িত স্থান।

মানিক সরকার বলেন, আখাউড়া-আগরতলা রেলপথ যোগাযোগ ব্যবস্থা এখন সময়ের ব্যাপার মাত্র। ইতোমধ্যে সামব্রুম দিয়ে মৈত্রী সেতুর কাজ হাতে নেয়া হয়েছে। চট্টগ্রাম বন্দরের কাছে ডাবল লেনের পর চার লেনের দাবি করা হয়েছে। অনুষ্ঠানে ত্রিপুরার অর্থমন্ত্রী বাদল চৌধুরীও বক্তব্য দেন।

অনুষ্ঠানে স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের শিল্পী মনোরঞ্জন ঘোষালের কণ্ঠে পরিবেশিত হয়- ‘পূর্ব দিগন্তে সূর্য উঠেছে রক্ত লাল, রক্ত লাল, রক্ত লাল’ গানটি। মানিক সরকার বলেন, আমরা খুব দ্রুত চট্টগ্রামের সঙ্গে ত্রিপুরার যোগাযোগ ব্যবস্থা স্থাপন করতে চাই। বাংলাদেশ-ভারতের মধ্যে বাণিজ্যিক প্রসারে দু’দেশের প্রধানমন্ত্রীকে আরও উদ্যোগী হওয়ার আহ্বান জানান তিনি।

১২১ কানি জায়গার ওপর গত ৭ বছর ধরে গড়ে তোলা হয়েছে ভারত-বাংলাদেশ মৈত্রী উদ্যান। একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধে বাংলাদেশের স্থপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও ভারতের প্রয়াত প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধীর অবদানের কথা স্মরণ করেন তিনি।

উল্লেখ্য, ২০১০ সালের ১১ নভেম্বর বাংলাদেশের তৎকালীন পররাষ্ট্রমন্ত্রী দীপু মনি চোত্তাখোলায় ‘ভারত-বাংলাদেশ মৈত্রী উদ্যান’র ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন। শনিবার বিজয় দিবসের দিন তা উদ্বোধন করা হল। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস বিভাগের অধ্যাপক ড. মুনতাসির মামুন, মেজবাহ কামাল ছাড়াও ত্রিপুরা রাজ্যের মন্ত্রীরা।

More News from বাংলাদেশ

Developed by: TechLoge

x